সম্পাদকীয়

হোম দশদিক সংখ্যাঃ ৬৭


সানাউল হক
সম্পাদক,দশদিক


ঈদুল আযাহার প্রকৃত শিক্ষাই হলো ভোগ নয়, ত্যাগেই আনন্দ। আমাদের খেয়ালি প্রবৃত্তি যা যুক্তির ধার ধারে না, সেই খেয়ালি প্রবৃত্তির চাওয়া-পাওয়ার ওপর আল্লাহর সন্তুষ্টি ও ইচ্ছাকে প্রাধান্য দেয়ার শিক্ষা দেয় এই পবিত্র ঈদ। হযরত ইব্রাহিম ও ইসমাইল (আ.) এবং হযরত ইমাম হুসাইন (আ.) মানব জাতিকে শিখিয়ে গেছেন কিভাবে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য আত্মত্যাগ করতে হয় এবং শিখিয়ে গেছেন কিভাবে ভেতর ও বাইরের শয়তানগুলোর বিরুদ্ধে লড়াই করতে হয়, কিংবা কখন ছুঁড়তে হয় পাথর। ঈমানের সেইসব কঠিন পরীক্ষায় যারা যত বেশি নম্বর অর্জন করতে পারেন তারাই হন তত বড় খোদা-প্রেমিক ও ততই সফল মানুষ এবং আল্লাহর প্রতিনিধি হিসেবে ততই সফল। ঈদের প্রকৃত আধ্যাত্মিক আনন্দ তারা ঠিক ততটাই উপভোগ করতে পারেন যতটা তারা এ জাতীয় পরীক্ষায় সফল হন। কুরবানির গোশত আল্লাহর কাছে যায় না। যা যায় বা রেকর্ড হয়ে থাকে তা হল আমাদের মনে খোদা-প্রেমের গভীরতার মাত্রা। কুরবানির গোশত দরিদ্রদের জন্য যতটুকু বিলিয়ে দেয়া হয় কেবল সেটাই পরকালে আমাদের পাথেয় হয়ে থাকবে। আর যেটাকে আমাদের অংশ মনে করে কৃপণের ধনের মত আঁকড়ে আছি আমরা সেটাই বরং আমাদের কাছ থেকে হাতছাড়া হয়ে আছে যা আমরা জানি না। আল্লাহ আমাদের যা যা দিয়েছেন তার মধ্যে সর্বোত্তম বা সবচেয়ে প্রিয় বিষয়গুলোকে আল্লাহর পথে দান করার শিক্ষা দেয় ইসলামের অনন্য উৎসব ঈদুল আযহা। বাবা-মা, প্রতিবেশী, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব, সহকর্মী ও দরিদ্রসহ সব শ্রেণীর মানুষের অধিকার রক্ষা, আল্লাহর অধিকার রক্ষা এবং নিজের অধিকার রক্ষাসহ সব দায়িত্বগুলো যথাযথভাবে পালনের চেষ্টার মাধ্যমে আমাদের ইহকালীন ও পরকালীন সব বিষয়কে সংশোধন করা সম্ভব। অবশ্য এ জন্য দরকার যথাযথ জ্ঞান অর্জন। সব ধরনের পাপ ও কলুষতা থেকে মুক্ত থেকে আমরা প্রত্যেক দিনকেই যেন পরিণত করতে পারি প্রকৃত ঈদে, পবিত্র ঈদুল আজহার দিনে এই হোক আমাদের সবার শপথ ও মহান আল্লাহর কাছে একান্ত প্রার্থনা। দশদিকের সকল পাঠক, বিজ্ঞাপন দাতা, শুভানুধ্যায়ীদের জানাই পবিত্র ঈদের প্রীতি ও শুভেচ্ছা। ঈদ মোবারক।

পাতাটি ৭৯০ বার প্রদর্শিত হয়েছে।